উবার ও পাঠাও এর পর যেসব সার্ভিস চালু হতে পারে

ঢাকায় এত জ্যাম! এখন পাঠাও নিলেও বিপদ। উবার নিলে তো মহাবিপদ! এই মহাবিপদ থেকে বাঁচতে কি করা যায় তাই নিয়ে চলছে গবেষনা ফেসবুক মহলে।

 

উঠাওঃ অন-ডিমান্ড উঠিয়ে নিয়ে যাওয়া সার্ভিস উঠাও চালু করা যেতে পারে। ধরুন মহা জ্যামে পড়েছেন মহাখালীতে। আর ২০ মিনিট পর এক্সাম, যেতে হবে শাহবাগ। এই মুহুর্তে আপনার যেটি সবচেয়ে বেশি কাজে আসবে সেটি হল উঠাও। রিক্যুয়েস্ট দিবেন আর সাথে সাথে হেলিকপ্টার সার্ভিস উঠাও এসে আপনাকে তুলে নিয়ে যাবে। :v

 

ডুবাওঃ ধরুন বুড়িগংগার তীরে দাঁড়িয়ে আছেন; যেতে হবে অন্য কোথাও। অথবা হাতির ঝিলে দাঁড়িয়ে আছেন, কিছুই পাচ্ছেন না যাওয়ার জন্য। ঠিক এই মুহুর্তে আপনার দরকার ডুবাও। কিছুদিন আগে আমরা সাব মেরিন কিনেছিলাম, সেটি সার্ভিস দিতে পারে। আপনাকে ডুবিয়ে নিয়ে যাবে আপনার কাংখিত স্থানে। বাসায় এসে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলেন; সরকারী সার্ভিস ডুবাও এর জন্য কয়টি লাইক ফ্র্যান্স?

 

কোপাওঃ কিছুদিন আগে গেল কোরবানী। শুধু জ্যামের দকল নয়; আছে অন্য ধকলও! যেমন কোরাবীর সময় কসাই পেতে নাভিশ্বাস উঠে গিয়েছিলো আমাদের ঢাকাবাসীর। প্রয়োজনে পাশে, অন ডিমান্ড কসাই সার্ভিস কোপাও আসতে পারে। ব্যবসার নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হতে পারে এর ফলে।

 

on demand ride sharing dhaka

 

ফালাওঃ বিভিন্ন অকেশনে নাপিতদের ডিমান্ড বেড়ে যায়। এক্সট্রা চার্জ করা শুরু করে। লাইন দিতে হয়। চুল দাঁড়ি ফেলতেও নষ্ট করতে হয় অনেক সময়। এখন পর্যন্ত বাড়িতে গিয়ে কেউ চুল দাঁড়ি কাটার সার্ভিস দিচ্ছেনা। তাই আজই চালু হতে পারে বাড়ি গিয়ে চুল দাঁড়ি কেটে দেওয়ার সার্ভিস ফালাও। প্রথম ৩টি ফালাও সার্ভিস ৫০% অফ এবং থাকতে পারে মাসাজ অ্যাড অন।

ঘাড়াওঃ এটি একটি তিরষ্কার সার্ভিস। আমরা অনেক কিছু ভাবি বলব, কিন্তু বলতে পারিনা। ঘাড়াও কালেকশানে থাকবে যুক্তি ও তর্কবিদ। কাউকে বকা ঝারি দিয়ে হলে আপনি হায়ার করবেন একজন ঘাড়ককে। তিনি আপনার হয়ে ঘাড়াবেন। অবশ্যই ঘাড়ক কোন পচা কথা বলতে পারবেন না। তিনি সুন্দর সাবলীল বাসায় যুক্তি তর্ক দিয়ে ঘাড়িয়ে আসবেন। রাত ১২টার পর ট-শো তেও ডাক পেয়ে যেতে পারেন তিনি।

 

দাঁড়াওঃ ড্রাইভিং লাইসেন্স থেকে শুরু করে পাসপোর্ট সব কিছু করাতে দরকার হয় লাইনে দাঁড়াতে। কিন্তু এর ফলে দরকারী সময় নষ্ট হয়ে যায় আমাদের। বাংলাদেশে ২২ লাখ তরুন বেকার এখনো। তাই এখনি শুরু করা যেতে পারে অন ডিমান্ড দাঁড়াও সার্ভিস। আপনার জন্য অন্য কেউ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকবে।

 

চুলকাওঃ প্রায় আমাদের পিঠ চুলকায়। কিন্তু হাত রিচ না করায় চুলকানো মুশকিল। চালু হতে পারে চাহিবা মাত্র পিঠ চুলকিয়ে দেওয়া সার্ভিস চুলকাও। রোবটিক হ্যান্ড দিয়ে চুলকিয়ে দেওয়া হবে যেখানে সেখানে। এরপর রোবটিক্স এর ব্যপক প্রসার ঘটতে পারে বাংলাদেশে। এরফলে সৃষ্টি হবে কর্মসংস্থান।

 

পনার চিন্তায় এমন আরো কোন সার্ভিস থাকলে অবশ্যই শেয়ার করে জানাবেন 😉

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *