টম অ্যান্ড জেরি নিয়ে মজার তথ্য

টম অ্যান্ড জেরি কার্টুন সিরিজ, আট থেকে আশি সবার প্রিয়। সারা বিশ্বে জনপ্রিয় ইঁদূর বিড়ালের এই খুনসুটি, যা সবার মুখে ফোঁটায়। যদিও ছোট বড় সবার প্রিয় তাও অনেকেই এই সিরিজটি সম্পর্কে অনেক কিছু জানেন না। কবে শুরু হয়েছে, কে ট্ম অ্যান্ড জেরি নাম দিয়েছে, কত সালে তাদের বন্ধুত্ব হয় , ইত্যাদি।  তাই এই সিরিজটির কিছু অজানা তথ্য আপনাদের সামনে উপস্থাপন করছি।

Tom & Jery
Tom & Jery

চলুন জেনে নিই তথ্যগুলোঃ

১/ প্রথম দেখা ১৯৪০ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি টম অ্যান্ড জেরি সিরিজ মুক্তি পেয়েছিল। কিন্তু আপনি কি জানেন প্রথমে এই দুজনের নাম টম এবং জেরি ছিল না। টমকে ডাকা হত জ্যাসপার নামে আর জেরির নাম ছিল জিঙ্কস।

 

২/ টম অ্যান্ড জেরি নাম দুটি দিয়েছেন অ্যানিমেটর জন কার। একটি প্রতিযোগিতার মাধ্যমে এই নাম ঠিক হয়। এবং তাই স্থায়ীভাবে রেখে দেওয়া হয়। আর তার জন্য জন কার ৫০ ডলার পুরস্কার মূল্য পেয়েছিলেন।

 

৩/ টম অ্যান্ড জেরি চিরকাল নিন্দুকের সমালোচনার মুখে পড়েছেন হিংসায় ভরা গল্পের জন্য। বিড়াল ও ইঁদুরের খুনসুঁটি দেখানো হলেও কখনও রক্ত বা ক্ষত থেকে নির্গত চাপ চাপ রক্ত এরকম কিছু দেখানো হয়নি।

 

৪/ টম অ্যান্ডি জেরি তখনকার সময়ে সবচেয়ে বেশি ব্যবসা করা অ্যানিমেটেড শর্ট ফিল্ম ছিল।

 

৫/ টম অ্যান্ড জেরি কিন্তু প্রথম থেকে নির্বাক ছিল না। কয়েক দশক ধরে তারা সংলাপ বিড়বিড় করেছে। এমনকী ১৯৯২ সালে টম অ্যান্ড জেরি ছবিতেও তারা মুখ চুপ রাখতে পারেনি।

tom-jerry-quarrel
tom-jerry-quarrel

৬/ ১৯৪২ সালে কমিক বইয়েও টম অ্যান্ড জেরি ছাপা হতে শুরু করে।

 

৭/ টম অ্যান্ড জেরির স্রষ্টা (creator) উইলিয়াম হ্যানা আর জোসেফ বারবারা, তারা ১৯৬৫ সালে কার্টুনটি টেলিভিশনে এয়ার করতে শুরু করেন।

 

৮/ ১৯৭৫ সালে একটি বিশেষ সিরিজে সবসময় লড়াই করতে থাকা টম অ্যান্ড জেরির বন্ধুত্ব হয়ে যায়। তারা বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়ায় খেলায় অংশ নেয়, রহস্যর সমাধান করে, কিন্তু সৌভাগ্যবশত তা এই বন্ধুত্ব বেশিদিন টেকেনি।

 

৯/ ১৯৯২ সালের ১ অক্টোবর প্রথমবার আন্তর্জাতিক মুক্তি হয় টম অ্যান্ড জেরি : দ্য মুভি।

 

১০/ টম অ্যান্ড জেরির শেষ পর্বে দুজনেই তাদের জীবন শেষ করে দেয়। রেলওয়ে ট্র্যাকে হতে টম আত্মহত্যার চেষ্টা করে, জেরিও যোগ দেয় তার সঙ্গে।

 

১১/ পঞ্চাশের দশকে টম অ্যান্ড জেরির সাত মিনিটের একটা কার্টুন বানাতে খরচ হতো ৩৬ হাজার ডলার! পরে হ্যানা-বারবারার  কার্টুন বানানোর বানানোর নতুন পদ্ধতি ‘সেমি অ্যানিমেশন’ আবিষ্কারের ফলে এ খরচ তিন হাজার ডলারে নেমে আসে।

Tom-and-Jerry-Friends
Tom-and-Jerry-Friends

১২/ প্রথমে টম অ্যান্ড জেরির একটি পর্ব বানাতে প্রায় ২৬ হাজার ড্রয়িংয়ের প্রয়োজন হতো! পরে ড্রয়িংয়ের পরিমাণ প্রায় ১৬০০-তে নামে আসে।

 

১৩/ ১৯৪০ থেকে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত সাতবার অস্কারজয়ী এ কার্টুন ইতিহাসে সর্বাধিকবার অস্কারজয়ী কার্টুন।

 

১৪/ টম ‘রাশিয়ান ব্লু’ জাতের বিড়াল, আর জেরি সাধারণ ধূসর ধাড়ি ইঁদুর। যদিও দুজনেরই রং ধূসর, তবুও কার্টুনে তাদের রং গাঢ় নীল আর কিছুটা সোনালি।

 

১৫/ জেরিকে প্রথম থেকেই বুদ্ধিমান দেখানো হলেও শুরুর দিকে টমের আচরণ আর বুদ্ধিমত্তা সাধারণ বিড়ালের মতোই ছিল। পরে টমের বুদ্ধিমত্তা আর আচরণ অনেকটা মানুষের মতোই করে দেওয়া হয়, এমনকি তার চলাফেরাও স্থায়ীভাবে দুই পায়ে করে দেওয়া হয়।

 

১৬/ কার্টুনে টম আর জেরির লাঠিসোঁটা, বোম, পিস্তল, তলোয়ার, কামান, ছুরি, কাঁচিসহ নানান অস্ত্রসস্ত্র  ব্যবহার করে মারামারির মাধ্যমে ‘Violence’ সৃষ্টি করার কারণে তৎকালীন সময়ে টম অ্যান্ড জেরি ছিল একটি বিতর্কিত কার্টুন!

tom & jery weapon
tom & jery weapon

১৭/ টম অ্যান্ড জেরি কার্টুনের বিতর্ক কুড়ানোর আরেকটি কারণ ছিল টমের মালিক Mammy Two Shoes (মোটা মহিলা, যার চেহারা আমরা কখনো দেখি নাই)। আসল পর্বগুলোতে এই মহিলার সব ডায়ালগ ছিল কৃষ্ণাঙ্গদের উচ্চারণের ইংরেজিতে, আর তার কথাবার্তার মাধ্যমে তাকে খুবই বোকা আর ভিতু বোঝানো হতো। এর ফলে কৃষ্ণাঙ্গরা বিতর্ক তোলে যে তাদের হেয় করার জন্য এটি ইচ্ছাকৃতভাবে করা হয়েছে।

 

১৮/ পরে টমের মালিকের ডায়ালগগুলো পরিবর্তন করে আইরিশ-আমেরিকান উচ্চারণে দেওয়া হয় (আমরা এখন যেটা টিভিতে দেখি)।

১৯/ ১৯৪০ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত টম অ্যান্ড জেরি বিভিন্ন সময়ে চারজন পৃথক পৃথক পরিচালকের হাতে তৈরি হয়। হ্যানা-বারবারার পর টম অ্যান্ড জেরির সবচেয়ে সফল পরিচালক ছিলেন চাক জোনস। তিনি টম, জেরি এবং কার্টুনের ব্যাকগ্রাউন্ডের বেশ কিছু পরিবর্তন করেন।  চাক জোনসের পর হ্যানা-বারবারা পুনরায় টম অ্যান্ড জেরিতে ফিতে আসেন।   


Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *