মজার গুগল

ইন্টারনেট ব্যবহার করেন অথচ গুগলে সার্চ করেন না, আজকাল এমন মানুষ পাওয়া কঠিন হয়ে যাবে।

কারণ বিশ্বে এখন সার্চ ইঞ্জিনে প্রথম হল গুগল। গুগলে আমরা যেকোন বিষয়ই সার্চ করি। এবং  গুগলের উপর আমরা নির্ভরও করছি, কারণ গুগল দিচ্ছে আমাদের নির্ভরযোগ্য তথ্য। আর সে গুগল সম্পর্কে আজকে আপনাদের জানাব কিছু চমকপ্রদ তথ্য।

গুগল অফিস
গুগল অফিস

 

১। গুগল এর প্রতিষ্ঠাতারা হলেন ল্যারি পেইজ ও সার্গেই ব্রিন। তারা ক্যালিফোর্নিয়া স্টেনফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় এ P.hD করার সময় গুগল লঞ্চ করেন।

 

গুগল ফাউন্ডার ল্যারি পেজ ও সার্গে ব্রিন
গুগল ফাউন্ডার ল্যারি পেজ ও সার্গে ব্রিন

 

 

২। গুগল যখন যাত্রা শুরু করে তখন প্রতি সেকেন্ডে মাত্র ৩৫-৪০ টি সার্চ রেজাল্ট দেখাতে পারতো। তবে এখন সেকন্ডেরও কম সময়ে মিলিয়ন এরও বেশি সার্চ রেজাল্ট দেখাতে পারে।

 

৩। প্রথমে  গুগলের নাম  ছিল ‘ব্যাকরাব’।

 

৪। গুগলে  চাকুরী করতে হলে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা সার্টিফিকেট এর তেমন মূল্য নেয়। গুগলে কর্মরত দের মধ্যে ১৫% কর্মী কলেজই শেষ করেননি বা কলেজেই যাননি। এমনকি তারা ড্রেস কোডও ফলো করে না। যে কোন ড্রেস পরেই অফিস করা যাবে।

 

৫। গুগল প্রতি বছর ১লা এপ্রিল কর্মীদের অবাক করে দিয়ে এপ্রিল ফুল উদযাপন করে। আর ২০০৪ সালের ১ লা এপ্রিল গুগলের জিমেইল চালু করা হয়। তাই, অনেকেই তখন ভাবে যে এটাও হয়তো একটা এপ্রিল ফুল প্র্যাংক। কিন্তু ২০০৭ সালের ১লা এপ্রিল ঘটে উলটা ঘটনা , গুগল তাদের কর্মকর্তা দের একটি মেইল পাঠান এই বলে যে, তাদের অফিসে একটি অজগর ঢুকে পড়েছে। সবাই বুঝতে পারে যে এটি একটি এপ্রিল ফুল প্র্যাংক। কিন্তু পরে দেখা যায় সত্যি সত্যিই একটি অজগর এসে পড়ে গুগল এর অফিস প্রাংগনে।

 

৬। গুগুল (google) নাম নিয়েই আছে মজার ইতিহাস। গুগুল প্রথমে এর নাম রেখেছিল Googol. কিন্তু নিবন্ধনের সময় বানান ভুল করে হয়ে যায় গুগুল (google)। যা পরবর্তীতে আর ঠিক করার কথা চিন্তাও করা হয়নি এবং বর্তমানে গুগুলের গুরুত্ব বিবেচনা করে তা ইংরেজি শব্দকোষে অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে।

 

৭। প্রতি মাসে ২ টি করে নতুন কোম্পানি কিনে নেয় গুগল, ২০১০ সাল থেকে।

 

গুগল অফিস
গুগল অফিস

 

৮। গুগল প্রতি বছর প্রায় ২০-৩০ বিলিয়ন ডলার আয় করে  শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন দাতাদের কাছ থেকে।

 

৯। ‘I am feeling lucky’ বাটনটির কারণে প্রতিবছর প্রায় ১১০ মিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয় গুগলের। কারণ এই বাটনটি দিয়ে সার্চ দিলে গুগল কোন বিজ্ঞাপন দেখায় না। তবে, শুধুমাত্র ব্যবহারকারীদের কথা ভেবেই গুগল এই বাটনটি চালু রাখে।

 

১০। গুগল এর হোমপেজটি প্রথম থেকেই খুবই সাধারণ। এ তে ২৮ টি শব্দের বেশি ব্যবহার করা হয় না। তার মূল কারণ হল – গুগলের ফাউন্ডাররা তখন ভাল করে HTML (ওয়েব ডিজাইন ল্যাংগুয়েজ) জানতেন না। তাই তারা যত সহজ ভাবে সাইট টি সাজানো যায়,তাই করেন। প্রথম দিকে সাইটে কোন সার্চ বাটন ছিল না, যা সার্চ করবেন তা লিখে ‘Enter’ কি চাপতে হত। কারণ গুগল এর ফাউন্ডাররা সার্চ বাটন ডিজাইন করতে জানতেন না।

 

১১। সবাই হোম পেইজে বিজ্ঞাপন দেয় এবং অর্থ উপার্জন করে । কিন্তু এক্ষেত্রে  গুগলের লক্ষ্য ভিন্ন। গুগল চায় তাদের হোমপেজটি সবসময় আগের মতই অতি সাধারণ থাকুক। ব্যবহারকারীরা যাতে কোন বিরক্তিকর অবস্থায় না পড়েন।  আর কেউ যদি গুগল হোমপেজে বিজ্ঞাপন দিতে চায় তাহলে দিতে হবে ১০ মিলিয়ন ডলার।

 

১২।  “Don’t be evil.”-হল গুগলের আনঅফিশিয়াল মটো

 

১৩। Google.com এ প্রায় ৬০ ট্রিলিয়ন সাইট ইন্ডেক্স করা আছে।

 

১৪। ভিজিটর এর সংখ্যার হিসেবে সর্বপ্রথমে আছে  Google ।দ্বিতীয় স্থানে  আছে ফেসবুক।

 

১৫। ১৬ আগষ্ট, ২০১৩ সালে ৫ মিনিটের জন্য গুগল এর সাইট ডাউন হয়। আর তাতেই, ৪০% ইন্টারনেট ব্যবহারকারী কমে যায়।

গুগল অফিস ক্যাম্পাস
গুগল অফিস ক্যাম্পাস

 

 

১৬। কখনোই আগে  গুগলে সার্চ করে নি,  এমন  প্রতিদিন প্রায় ১৬% নতুন কিছু গুগলে সার্চ করা হয় ।

 

১৭। ‘GOOGLE’ তার বানানের সব গুলো অক্ষরই কপিরাইট করে রেখেছে।

 

১৮।  একবার Apple Inc. কোম্পানির সিইও স্টিভ জবস গুগলে কল করে জানান যে, গুগল এর লোগো তে ২য় ‘O’  টির রঙ পুরোপুরি হলুদ নয়। তাই তারা যেন সেটি ঠিক করে নেয়।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *